পাশের বাসার মেয়েটাকে সরাসরিই বলেছিলাম,”আমি তোমার সাথে প্রেম করতেচাই’।

0
192

পাশের বাসার মেয়েটাকে সরাসরিই বলেছিলাম,
”আমি তোমার সাথে প্রেম করতে
চাই’।
-‘কি বললা?’
-‘বলেছি, আমি তোমার সাথে প্রেম
করতে চাই।’
.
কয়েকদিন পর বাবা-মা বাইরে যাওয়ার
সুযোগে মেয়েটা তার ফাকা বাসায়
আমাকে ডেকে নিয়ে গিয়ে বললো,
‘নাও, শুরু করো’।
.
অথচ আমি প্রেম করা বলতে অন্য কিছু
বুঝতাম।
একসাথে লংড্রাইভে ঘোরা,
চাইনিজে খাওয়া, সিনেমায় যাওয়া;
আরো কতো কি!
.
আমার চুপ করে থাকা দেখে মেয়েটা
আবার বললো, ‘কি হলো, শুরু করো!
এতো লজ্জা পাওয়ার কি আছে! তুমি
না ছেলে মানুষ?
এইযে এদিকে হাত ধুয়ে নাও। দেখ
তোমার সব পছন্দের খাবার রেঁধেছি।
হোস্টেলে থাকো, কি খাও না খাও; একদম
শুকায় গেছো।’
.
আমি খাওয়া শুরু করলাম। মেয়েটা যত্ন
নিয়ে আমার প্লেটে খাবার তুলে
তুলে দিচ্ছে।
.
আমি বুঝতে পারলাম প্রেম করা নিয়ে
আমার ধারনা ভুল ছিলো। আসলে এটাই
প্রকৃত প্রেম!
.
অনেকদিন পর তৃপ্তি সহকারে পেট ভরে
খেলাম। খাওয়া দাওয়া শেষে
মেয়েটা আমাকে তার বেডরুমে
নিয়ে গেলো।
বললো, ‘এইসব কাজ করতে গায়ে অনেক
শক্তি থাকা লাগে। তাই তোমাকে
আগে খাইয়ে নিলাম। আসো, এবারে
শুরু করো’
.
অথচ আমি একটু আগেই প্রেম করা মানে
অন্য কিছু বুঝতে শিখেছি। যার সৌন্দর্য
শারীরিক নয়; যার সৌন্দর্য
মানসিকতায়!
আমার খুব খারাপ লাগলো। ইচ্ছে
হচ্ছিলো ছুটে পালিয়ে আসি। কিন্তু
মেয়েটার চোখের তেজি দৃষ্টি
দেখেই বুঝতে পেরে গেছি সে
আমাকে আজকে যা খাইয়েছে তার
এনার্জি পুরোটা শুষে না নিয়ে
ছাড়বে না।
.
আমার চুপ করে থাকা দেখে মেয়েটা
আবার বললো, ‘কি হলো শুরু করো! পুরুষ না
তুমি? গায়ে জোর নেই নাকি?
.
কি আর করা! বাধ্য হয়েই হাত লাগাতে
হলো। তারপর দুজনে মিলে ওর রুমের
খাট, সোফা, আলনা, ওয়ারড্রপ, সবকিছুর পজিশন
চেঞ্জ করে নতুনভাবে সাজালাম।
প্রচণ্ড ভারি একেকটা জিনিস। উচু
করাই কষ্ট! এখনো সারা গায়ে ব্যাথা
করতেছে.
কালেক্টেড,
অজানা লিখক “

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here